শিল্পী সমিতির নির্বাচন ” নারী প্রার্থীরা কে কেমন?


বিনোদন ডেস্ক::
বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচন ঘিরে জমে উঠেছে প্রচারণা। পৃথক তিনটি প্যানেল থেকেই ভোটারদের নানা রকম প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন প্রার্থীরা। এবারের নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন নতুন-পুরনো অনেক চলচ্চিত্র শিল্পী। এর মধ্যে নারী প্রার্থীদের অংশগ্রহণ চোখে পড়ার মতো। নারী প্রার্থীদের মধ্যে এক সময়ের জনপ্রিয় নায়িকা যেমন আছেন, তেমনি আছেন এক ছবির নায়িকাও। আবার ইদানীং বড়পর্দায় নেই কিন্তু আলোচনায় আছেন এমন নায়িকার উপস্থিতিও মন্দ নয়। নারী প্রার্থীদের অধিকাংশই কার্যনির্বাহী সদস্য পদে লড়ছেন।
এদিকে ৫ মে অনুষ্ঠিতব্য নির্বাচনে প্রার্থীদের চূড়ান্ত তালিকায় ‘অশিল্পী’দের উপস্থিতি দেখে নানা রকম কথা উঠেছে। এ নিয়ে অনেকে হতাশা প্রকাশ করলেও নারী শিল্পীদের অংশগ্রহণের ব্যাপারটিকে ইতিবাচকভাবেই নিচ্ছেন চলচ্চিত্র বিশ্লেষকেরা।
এবারের নির্বাচনে সভাপতি পদের জন্য লড়ছেন অভিনেতা মিশা সওদাগর, ওমর সানি ও ড্যানি সিডাক। দুটি সহ-সভাপতি পদের বিপরীতে লড়ছেন ছয়জন। এর মধ্যে দু’জন নারী প্রতিদ্বন্দ্বী রয়েছেন। তারা হলেন নূতন ও অমৃতা খান। অন্যরা হলেন নাদির খান, রিয়াজ ও সাংকোপাঞ্জা।
সাধারণ সম্পাদক পদ একটি, লড়ছেন অমিত হাসান, ইলিয়াস কোবরা ও জায়েদ খান। একটি সাংগঠনিক সম্পাদক পদের জন্য লড়ছেন তিনজন। এর মধ্যে দু’জনই নারী শিল্পী। তারা হলেন একা ও রিনা খান। প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে আরও আছেন সুব্রত।
এবার দেখা যাক কোন নারী প্রার্থী কোন প্যানেল থেকে লড়ছেন।
মিশা সওদাগর-জায়েদ খান পরিষদে নারী প্রার্থীদের মধ্যে আছেন অঞ্জনা, রোজিনা, নূতন, পপি ও পূর্ণিমা। ওমর সানী-অমিত হাসান পরিষদে আছেন রিনা খান, অরুনা বিশ্বাস, মৌসুমী ও জেসমিন। এ ছাড়া ড্যানি সিডাক-ইলিয়াস কোবরা পরিষদের নারী প্রার্থীরা হলেন একা, অমৃতা খান প্রমুখ।
২০১৫ সালের ৩০ জানুয়ারি সবশেষ শিল্পী সমিতির দ্বিবার্ষিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এতে শাকিব খান সভাপতি ও অমিত হাসান সাধারণ সম্পাদক হন। এবারের নির্বাচন ঘিরে সরগরম হয়ে উঠেছে চলচ্চিত্র অঙ্গন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*