শুদ্ধ বাংলা ভাষাচর্চার শিক্ষক বাংলাদেশ বেতার : তথ্যমন্ত্রী

ঢাকা অফিস :: বাংলাদেশ বেতার বহুমাত্রিক সম্প্রচার কেন্দ্র। বাংলাদেশ বেতার শুদ্ধ বাংলা ভাষাচর্চার শিক্ষক বলেও মন্তব্য করেছেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু।
তিনি বলেছেন, শুদ্ধ উচ্চারণে বাংলা কথনের প্রচার কেন্দ্র এই বাংলাদেশ বেতার স্বাধীনতা যুদ্ধে শব্দ সৈনিক হিসেবেও ভূমিকা রেখেছে।
মঙ্গলবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) সকালে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে বাংলাদেশ বেতার কেন্দ্রীয় অফিসের সামনে আন্তর্জাতিক বেতার দিবস উপলক্ষে র‌্যালি পূর্ব শুভেচ্ছা বার্তায় এ কথা বলেন তথ্যমন্ত্রী। উপস্থিত ছিলেন তথ্য সচিব নাসির উদ্দিন আহমেদ, বাংলাদেশ বেতারের মহাপরিচালক নারায়ণ চন্দ্র শীল ও বাংলাদেশ বেতারের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।
‘ক্রীড়াঙ্গনে বেতার’- এ প্রতিপাদ্যকে ধারণ করে পালিত হচ্ছে বেতার দিবস।
দিবসটি উপলক্ষে দেশবাসীকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়ে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, বাংলাদেশ বেতার একটি প্রাচীন সম্প্রচার কেন্দ্র। বাংলাদেশ বেতার খেলার মাঠ থেকে কোটি কোটি জনগণের সংযোগ ও সম্পর্ক স্থাপনকারী প্রধান মাধ্যম। মাঠের খেলা সরাসরি সম্প্রচার এবং মাঠের খবর প্রচারের মধ্য দিয়ে খেলাধুলার সব খবর শ্রোতাদের কাছে পৌঁছে দিচ্ছে বাংলাদেশ বেতার।
তিনি বলেন, বাংলাদেশ বেতার বহুমাত্রিক সম্প্রচার কেন্দ্র। শুদ্ধ বাংলা ভাষাচর্চার শিক্ষক হচ্ছে বাংলাদেশ বেতার। শুদ্ধ উচ্চারণে বাংলা কথনের প্রচার কেন্দ্র বাংলাদেশ বেতার। যাপিত জীবনের প্রতিচ্ছবি এই বেতার। একইসঙ্গে বিনোদনের ফোয়ার বাংলাদেশ বেতার।
তথ্যমন্ত্রী বলেন, মুক্তিযুদ্ধের আগে এবং মুক্তিযুদ্ধের সময় বাংলাদেশ বেতার সবচেয়ে বলিষ্ঠ কণ্ঠযোদ্ধা বা শব্দ সৈনিক স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র। বাংলাদেশ বেতারের দীর্ঘদিনের সম্প্রচারকে মহিমান্বিত করেছে ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের পাশে থেকে এবং সঙ্গে থেকে। সেদিক থেকে বেতারের কলাকুশলিরা শ্রদ্ধার পাত্র।
তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণের প্রচার কেন্দ্র এবং ১৯৭১ সালে বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার ভাষণের বাণী সম্প্রচার কেন্দ্র হচ্ছে বাংলাদেশ বেতার। এই বেতার সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়ন যাত্রার সব খুঁটিনাটি বিষয়গুলো জনগণের সামনে এবং সুফলভোগীদের কাছে পৌঁছে দিচ্ছে। বাংলাদেশ বেতার জনগণের একটি অপরিহার্য প্রতিষ্ঠান।
বক্তব্য শেষে বাংলাদেশ বেতারের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নিয়ে একটি র‌্যালি বের হয়। র‌্যালিটি আগারগাঁও বেতার ভবনের সামনের রাস্তা দিয়ে ঘুরে পের বেতার ভবনে এসে শেষ হয়। বেতার দিবসে উপলক্ষে দিনব্যাপী বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*