অানোয়ারা পটিয়া সংযোগ সড়কের কালীগঞ্চ ব্রীজ,ঝুঁকিতে অাছে এক যুগ ধরে,দেখার নেই কেউ


এইচ এম এনামুল হক নাবিদ::
অানোয়ারা উপজেলার ৯নং পরৈকোড়া ইউনিয়নের সাথে সংযুক্ত পটিয়া উপজেলা । এই দুই উপজেলার মধ্যে সংয়োগ সৃষ্টিকারী কালীগঞ্চ ব্রীজ । এই ব্রীজটি বিগত এক যুগের বেশি সময় ধরে ঝুঁকিতে থাকলেও দেখার কেউ নেই । বর্তমানে পটিয়ার সাথে সংযুক্ত মুরালী ব্রীজ হলেও পটিয়া উপজেলার সাথে মুল যোগাযোগ ব্যাবস্থা হচ্ছে এই কালীগঞ্জ ব্রীজের মাধ্যমে । এই গুরত্ব পূর্ণ ব্রীজটি বিগত এক যুগ থেকে বেশি সময় ধরে বেহাল অবস্থা । চরম অনিশ্চয়তার মাধ্যমে সাধারণ মানুষ চলাচল করছে । ব্রীজটির বর্তমান অবস্থা এমন যে দেখলে মনে হবে যেন মরণ ফাঁদ । বর্তমানে ব্রীজটি দেখলে যদিও হাসি পাওয়ার কথা, তবে তার চেয়ে ভয়বেশী বলে হাঁসি চেপে যায় । তিন ভাগে নির্মিত এই ব্রীজ । মাঝখানে আরসিসি, দক্ষিণে পাশে কাঁট এবং উত্তরে স্টীলের সিট পাতানো । অার দুই পাশের লেলিংয়ের অবস্থা যেন মৃত্যুকূপ । এই ব্রীজ টি পরৈকোড়া ও অাশিয়া এই দুই ইউনিয়ের মানুষের একমাত্র যোগাযোগ ব্যবস্থা। এই ঝুঁকিপূর্ণ ব্রীজ দিয়ে প্রতিদিন চলাচল করে হাজার হাজার মানুষ । যখন পিএবি সড়ক ছিলনা তখন পূর্ব অানোয়ারার মানুষ এই পথ দিয়ে চট্রগ্রাম শহরে যাথায়াত করত।পূর্বে এই সড়কে বাসের লাইন থাকলেও এখন ব্রীজটির কারণে বাসের লাইন বন্ধ রয়েছে । বর্তমানে সিএনজি টেম্পো ট্রাকসহ কিছু কিছু হালকা ও ভারী যানবাহন চলাচল করে।পূর্ব অানোয়ারার মানুষের কথা চিন্তা করেই পাক অামলেই নির্মিত হয় এই গুরুত্ব পূর্ন ব্রীজটি। ব্রীজটি এক যুগ ধরে ঝুঁকি পুর্ন হলেও অাজ অবধি কার্যকরী স্বংস্কারের কোন পদেক্ষেপ নেওয়া হয়নি । ঝুঁকিপূর্ণ ব্রীজ দিয়ে মানুষ কতটা নিরাপদ ভাবে চলাচল মনে করেন তা জানতে চেয়েছিলাম এই পথ দিয়ে দৈনন্দিন যাতায়াত করা সাধারণ মানুষের কাছে,তারা বলেন এই ব্রীজ দিয়ে চলাচল করি যাতায়ত সহজ হওয়ার জন্য,না হয় এই ব্রীজটি যে কোন সময় দূর্ঘটনা হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে । ইতি পূর্বে অনেক দূর্ঘটনা হয়েছে, হয়েছে অনেক প্রানহানি । তবে এখানকার মানুষ মনে করেন মন্রী মহোদয় ইচ্ছে পোষন করলে কালীগঞ্চ পরৈকোড়া ভিংরোলসহ বেশ কিছু এলাকার মানুষের কথা চিন্তা করে এই যোগাযোগ ব্যাবস্থা; উন্নতমানের করানোর লক্ষ্যে স্বংস্কার না করে, নতুনভাবে ব্রীজটি নির্মান করেন তাহলে দুর্ভোগ পোহাবে হাজার হাজার মানুষের। অন্য দিকে নতুন দিগন্তের সুচনা হবে শহর মুখি পূর্ব অানোয়ারার মানুষের।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*