রাশিয়া বিশ্বকাপের পর্দা নামছে আজ

স্পোর্টস ডেস্ক :: ফ্রান্স ও ক্রোয়েশিয়ার মধ্যকার ফাইনাল দিয়ে আজ পর্দা নামছে রাশিয়া বিশ্বকাপ ফুটবলের। ‘গ্রেটেস্ট শো অন আর্থ’র সবচেয়ে আকর্ষণীয় ম্যাচে রাতে মুখোমুখি হচ্ছে ৯৮-এর চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্স ও প্রথমবারের মত ফাইনালে ওঠা ক্রোয়েশিয়া।
মস্কোর লুঝনিকি স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় রাত ৯টায় শুরু হবে ফাইনাল ম্যাচটি।
এক মাসের যুদ্ধ ও ৬৩ ম্যাচে লড়াই শেষে বিশ্বকাপ এখন আকর্ষনের শীর্ষে। ফাইনাল ম্যাচ। এই ম্যাচটির জন্য গেল এক মাস অধীর আগ্রহে ছিলো ফুটবলপ্রেমিরা। আশা ও আশা ভঙ্গের দোলাচলে আগামীকাল ফ্রান্স ও ক্রোয়েশিয়ার ফাইনাল দেখবে পুরো বিশ্ব। কারও পছন্দের দল রয়েছে ফাইনালে, কারও নেই। তারপরও তারুণ্য-নির্ভর ফ্রান্স লড়বে প্রথমবারের মত ফাইনালের জগতে প্রবেশ করা ক্রোয়েশিয়ার।
এক মাস আগে স্বাগতিক রাশিয়া-সৌদি আরবের ম্যাচ নিয়ে যতটা উত্তেজনা ছিলো, শেষ মুহূর্তেও সেই একই উত্তেজনা বিরাজ করছে। আর্জেন্টিনার অধিনায়ক লিওনেল মেসি, পর্তুগালের দলপতি ক্রিস্টিয়ানো রোনাল্ডো ও ব্রাজিলের দলনেতা নেইমার অথবা জার্মানি-স্পেনের মত বাঘা-বাঘা দল না থাকারও পর ফাইনাল নিয়ে উত্তেজনা তুঙ্গে।
তাই এখন প্রশ্ন দু’টি, বিশ্বকাপ কি পুরনো স্বাদ পাবে না-কি নতুন কোন দেশকে আলোকিত করে তুলবে। ১৯৯৮ সালে প্রথম ও শেষবারের মত বিশ্বকাপ জয় করে ফ্রান্স। আর এবারই প্রথমবারের মত ফাইনালে উঠলো ৪৪ লাখ লোকসংখ্যার দেশ ক্রোয়েশিয়া।
বয়স বিবেচনায় এবারের আসরে দ্বিতীয় সর্বকনিষ্ট দল ফ্রান্স। দ্রুতগতির এমবাপ্পে-গ্রিজম্যানের সাথে লড়াই হবে শিরোপা জন্য মরিয়া হয়ে উঠা লুকা মড্রিচ-ইভান রাকিটিচরা। এবারের আসরের সেরা মিডফিল্ডার হিসেবে ধরা হচ্ছে মড্রিচকে।
তারপরও অনেকের কাছে এটি হতাশার। কারন ঐহিত্যগতভাবে যারা বিশ্বকাপে দাপট দেখিয়ে আসছে অথবা দক্ষিণ আমেরিকার কোন দলের ফাইনালে না থাকায়।
বিশ্বকাপের ইতিহাসে এই নিয়ে দ্বিতীয়বার ঘটতে যাচ্ছে, ‘গ্রেটেস্ট শো অন আর্থ’র ফাইনালে নেই ব্রাজিল-জার্মানি-ইতালি ও আর্জেন্টিনা। ২০১০ সালে প্রথমবার এমনটি দেখা গিয়েছিলো। ঐ বার ফাইনাল খেলেছিলো স্পেন-নেদারল্যান্ডস।
তারপরও এবারের আসর ল্যাটিন আমেরিকার সমর্থকদের কাছে বর্ণাঢ্য আয়োজনের জন্য স্মরনীয় হয়ে থাকবে। তবে চূড়ান্ত পর্যায়ে দু’টি ইউরোপিয়ান দলের সেরা শক্তির প্রদর্শন দেখবে ফুটবল বিশ্ব।
এই বিশ্বকাপ জিতে আর্জেন্টিনা-উরুগুয়ের পাশে বসার সুযোগ আছে ফ্রান্সের সামনে। কারণ আর্জেন্টিনা-উরুগুয়ে দু’বার করে বিশ্বকাপ জয় করে। ১৯৯৮ সালে প্রথম ও শেষবার বিশ্ব ফুটবলের শ্রেষ্ঠত্বের মুকুট পড়েছিলো ফ্রান্স।
১৯৯৮ সালে বিশ্বকাপ জয়ী ফ্রান্স দলের অধিনায়ক ছিলেন দিদিয়ের দেশ্যম। এবার দেশ্যম ফরাসিদের কোচ। আর এবার যদি বিশ্বকাপের শিরোপা জয় করে ফ্রান্স, তবে বিশ্বের তৃতীয় খেলোয়াড় হিসেবে অনন্য এক রেকর্ড গড়বেন দেশ্যম। খেলোয়াড় ও ম্যানেজার হিসেবে বিশ্বকাপ জয়ের রেকর্ড গড়বেন তিনি। এর আগে ব্রাজিলের মারিয়ো জাগালো ও জার্মানির ফ্রাঞ্জ বেকেনবাওয়ার এমন কীর্তি গড়েছিলেন।
স্বাভাবিকভাবে বিশ্বকাপের ফাইনালকে স্বপ্নের ম্যাচ বলছেন ফ্রান্সের মিডফিল্ডার ব্লাইস মাতুইদি। তিনি বলেন, ‘বিশ্বকাপের ফাইনাল, শৈশবের একটি স্বপ্ন সত্য হতে চলেছে। আমরা শিরোপার খুব কাছে, আমরা সেটি স্পর্শ চাই। এটিই আমাদের জীবনের খেলা।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*