মহেশখালীতে অস্ত্র তৈরির কারখানার সন্ধান, আটক ২

কক্সবাজার প্রতিনিধি :: কক্সবাজারের মহেশখালীর দুর্গম পাহাড়ি এলাকায় অস্ত্র তৈরির একটি কারখানার সন্ধান পেয়েছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) সদস্যরা। শনিবার (২১ জুলাই) রাতে অভিযান চালিয়ে অস্ত্র তৈরি ও ব্যবসায় জড়িত অভিযোগে দুইজনকে আটক করা হয়েছে। এসময় কারখানা থেকে ২০টি বন্দুক, বন্দুকের বিপুল সংখ্যক গুলি ও বন্দুক বানানোর যন্ত্রপাতি জব্দ করা হয়েছে। আটকেরা হলেন আব্দুল হাকিম (৩৮) ও মোহাম্মদ শহিদুল্লাহ (৩১)। আটকেরা স্থানীয় বাসিন্দা বলে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে। অভিযানের নেতৃত্বে থাকা র‌্যাব-৭ এর কক্সবাজার ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার মেজর মেহেদী হাসান জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালানো হয়। স্থানীয় সন্ত্রাসীদের সমন্বয়ে বেশ কিছু সংখ্যক কারিগর অস্ত্র বানানোর কাজ করতেন। শনিবার সকাল থেকে র‌্যাব সদস্যরা সাদা পোশাকে এলাকায় অবস্থান নেন। রাত ৮টার পর থেকে শুরু হয় চূড়ান্ত অভিযান। তিনি জানান, এ মিশনে র‌্যাব দুই জায়গায় অভিযান চালায়। প্রথমে কালারমার ছড়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে অস্ত্র বানানোর দুই কারিগরকে আটক করা হয়। পরে আটকদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে দ্বিতীয় দফায় অভিযান শুরু করে র‌্যাব। এ সময় কালারমার ছড়া ইউনিয়নের পার্শ্ববর্তী পাহাড়ের গহীন বনের ভেতর স্থাপন করা অস্ত্রের কারখানায় অভিযান চালানো হয়। তখন বেশ কয়েকজন কারিগর ওই কারখানায় অস্ত্র বানানোর কাজ করছিলেন। উপস্থিতি টের পেয়ে অস্ত্রের কারখানা থেকে র‌্যাবের অভিযান দলকে লক্ষ করে তারা গুলি ছোড়ে। র‌্যাব সদস্যরাও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি চালায়। এ সময় কারিগররা পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। পরে কারখানা থেকে ২০টি বন্দুক, ২৪ রাউন্ড তাজা গুলি ও বন্দুক বানানোর যন্ত্রপাতি জব্দ করা হয়। র‌্যাবের এই কর্মকর্তা জানান, রোববার (২২ জুলাই) ভোর সাড়ে ৬টার দিকে অভিযান শেষ হওয়ার পর আটকদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ শেষে অস্ত্র, গুলি ও সরঞ্জামসহ তাদের মহেশখালী থানায় সোপর্দ করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*