‘কোরবানির মাংস কিনে হোটেলের ফ্রিজে রাখলে ব্যবস্থা’

স্টাফ রিপোর্টার :: কোরবানির মাংস কিনে হোটেলের ফ্রিজে সংরক্ষণ করলে সংশ্লিষ্ট হোটেল মালিকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক মো. ইলিয়াস হোসেন।

মঙ্গলবার (০৭ আগস্ট) বিকেলে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে ঈদুল-আজহা উপলক্ষে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ কমিটির সভায় জেলা প্রশাসক এসব কথা জানান।

মো. ইলিয়াস হোসেন বলেন, অনেক গরিব লোকজন কোরবানির মাংস সংগ্রহ করে হোটেলে বিক্রি করে দেন। হোটেল মালিক এসব মাংস দীর্ঘদিন ফ্রিজে সংরক্ষণ করে ভোক্তাদের পরিবেশন করেন। এটি স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। এবার এসব করা যাবে না। ঈদের কয়েকদিনের মধ্যেই জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে হোটেলে অভিযান পরিচালনা করা হবে।

জেলা প্রশাসক বলেন, ঈদুল-আজহায় যেহেতু কোরবানির বিষয় রয়েছে, তাই কোরবানির জন্য নিরাপদ পশুর ব্যবস্থা করা সবার কাছে চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়ায়। এবার জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে আমরা কিছু পদক্ষেপ নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আশা করি এতে জনভোগান্তি কমে আসবে।

তিনি বলেন, যেখানে সেখানে পশুর হাট বসানো, পশুর কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি, এন্টিবায়োটিক ওষধের মাধ্যমে পশু মোটা-তাজা করা বন্ধে বিভিন্ন উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি পশুর হাটকে কেন্দ্র করে যানজট নিয়ন্ত্রণ, জাল টাকা শনাক্তে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান পরিচালনা করা হবে।

কোরবানকে কেন্দ্র করে দ্রব্যমূল্যের দাম স্থিতিশীল রাখতে ব্যবসায়ীদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে জেলা প্রশাসক বলেন, কোরবানে মশলার চাহিদা বেশি থাকে। মশলার বাজারে যাতে দাম উর্ধ্বমুখী না হয়, সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। বাজার মনিটরিং কার্যক্রম আরও জোরদার করতে হবে।

সভায় আরও বক্তব্য দেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. হাবিবুর রহমান, সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর আবিদা আজাদ, বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতির চট্টগ্রাম মহানগর সভাপতি ছালামত আলী, চট্টগ্রাম চেম্বারের সাবেক পরিচালক মাহফুজুল হক শাহ, ক্যাবের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি এসএম নাজের হোসাইন, চট্টগ্রামের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল বাহার ছাবেরী প্রমুখ।

বক্তারা ঈদুল আজহা উপলক্ষে নিত্যপণ্যের অবাধ সরবরাহ, দ্রব্যমূল্য স্থিতিশীল, ভেজাল মশলা, ভেজাল খাবার, ভেজাল পানির বিরুদ্ধে করণীয় নিয়ে নিজেদের মতামত তুলে ধরেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*