আবদুল করিম সাহিত্যবিশারদ স্মরণ সভায় বক্তারা

সাহিত্যবিশারদ হিন্দু-মুসলিম সকল কবির রচিত কাব্য সংগ্রহ করে বাংলা সাহিত্যকে সমৃদ্ধ করেছেন


আমাদের ডেস্ক :: মুন্সি আবদুল করিম সাহিত্যবিশারদ স্মরণে ১১ অক্টোবর বিকেলে নগরীতে আন্তর্জাতিক বাংলাভাষী কল্যাণ পরিষদের লাভলেইনস্থ সংগঠন কার্যালয়ে এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিেেসব উপস্থিত ছিলেন আন্তর্জাতিক বাংলাভাষী কল্যাণ পরিষদের সভাপতি মিজানুর রহমান চৌধুরী। ইতিহাস গবেষক সোহেল মুহাম্মদ ফখরুদ-দীনের সভাপতিত্বে প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ পরিবেশ উন্নয়ন সোসাইটির চেয়ারম্যান সাংবাদিক এ কে এম আবু ইউসুফ। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জিএসএসনিউজ২৪ এর নির্বাহী সম্পাদক আবদুল নুর চৌধুরী, আবু হেনা খোকন, আবদুস সোবহান চৌধুরী, রিমন বড়–য়া, আবু নাছের, বাবু খান, অরুপ বড়–য়া প্রমূখ। প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, বাঙালি জাতিসত্তার ইতিহাসে কারণ বিশেষ অবদানের জন্য চট্টলগৌরভ পুঁথি পণ্ডিত ও সংগ্রাহক মুন্সি আবদুল করিমের নাম স্মরণীয় হয়ে থাকবে। এ প্রসংগে প্রয়াত ইতিহাস বিজ্ঞানী ড. আবদুল করিম বলেছেন, “এ ক্ষণ জন্মা মহাপুরুষের নাম জানে না এমন লোক বাংলা ভাষাভাষী শিক্ষিত জনগণের মধ্যে খুবই কম লোকেই আছে। আজীবন তিনি বাংলা সাহিত্যের সেবা করে গেছেন। তবে তাঁর কর্মকাণ্ডের ফলে বাংলার মুসলিম সমাজ উপকৃত হয়েছেন বেশি। আমার বিবেচনায় সাহিত্য বিশারদ ইতিহাস সৃষ্টি করেন। হিন্দুদের রচিত একটা বিরাট সাহিত্যভাণ্ডার যে ছিল সেটা সকলেই জানত। সাহিত্য বিশারদ যখন সাহিত্য ভান্ডারের এ জগতে প্রবেশ করেন, তখন দ্বিতীয় কোন মুসলমান সাহিত্য ক্ষেত্রে তেমন অগ্রসর ছিল না। কিন্তু কলকাতা এবং ঢাকায় অনেক উচ্চ শিক্ষিত হিন্দু, বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিগ্রীধারী, সংস্কৃত ও বাংলা পুঁথি সংগ্রহে লিপ্ত ছিলেন। মুসলিম রচিত কাব্য বা পুঁথি যে পাওয়া যেতে পারে তা সংগ্রাহকদের জানা ছিল না। আবদুল করিম সাহিত্য বিশারদ হিন্দু-মুসলিম সকল কবির রচিত কাব্য সংগ্রহ করতেন, সাহিত্যক্ষেত্রে, তিনি হিন্দু-মুসলিম বিভক্তিতে বিশ্বাসী ছিলেন না। তিনি সংগ্রহ না করলে মুসলমানদের রচিত কাব্য সংগৃহীত হত না এবং বাংলার মুসলমানদের ইতিহাসের কয়েকটি মূল্যবান অধ্যায় অলিখিত থাকত।” সভায় বক্তারা মুন্সি আবদুল করিম সাহিত্যবিশারদের কালজয়ী অবদানকে শ্রদ্ধায় স্মরণ করে বর্তমান প্রজন্মের কাছে তুলে ধরার আহ্বান জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*