শিগগিরই কর্ণফুলীর অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ হবে : জেলা প্রশাসক


স্টাফ রিপোর্টার::
জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ ইলিয়াস হোসেন বলেছেন, কর্ণফুলী নদীর পাড়ের বেশ কিছু অবৈধ স্থাপনা ইতোমধ্যে উচ্ছেদ করা হয়েছে। বাকি অবৈধ স্থাপনাগুলো শিগগিরই উচ্ছেদ করা হবে। রোববার (১২ মে) সকাল ১০টায় জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত জেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
মোহাম্মদ ইলিয়াস হোসেন বলেন, ব্যাটারীচালিত রিক্সা বন্ধের পাশাপাশি সড়কে যত্রতত্র গাড়ী পার্কিং, রাস্তা দখল করে দোকান নির্মাণসহ বিভিন্ন অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করতেও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।
তিনি বলেন, আইনশৃংখলা বাহিনী, ক্যাব, বাজার কমিটির নেতৃবৃন্দসহ সংশ্লিষ্টদের নিয়ে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরা টানা বাজার মনিটরিং কার্যক্রম পরিচালনা করার ফলে রমজানে পণ্যের মূল্য বাড়েনি। গরু চুরি রোধ, অবৈধ বালি উত্তোলন বন্ধ করা, কলার মুল্য ডজনপ্রতি ১২০ টাকার অধিক না রাখার বিষয়ে উপজেলা পর্যায়েও একই কার্যক্রম চলমান রয়েছে বলে জানান জেলা প্রশাসক।
সভায় জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) নুরেআলম মিনা বলেন, রমজান ও ঈদুল ফিতর উপলক্ষে জেলার সব উপজেলায় আইনশৃংখলা পরিস্থিতি ঠিক রাখতে পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। যানজট নিরসন ও অপরাধ রোধে পোষাকধারী পুলিশ কাজ করছে।
জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ ইলিয়াস হোসেনের সভাপতিত্বে সভায় মাল্টিমিডিয়ার মাধ্যমে গত এপ্রিল মাসের খাতওয়ারি অপরাধ চিত্র, সভার সিদ্ধান্ত ও অগ্রগতি তুলে ধরেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) মোহাম্মদ আবু হাসান সিদ্দিক।
সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন মহানগর মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ইউনিট কমান্ডার মো. মোজাফফর আহম্মদ, জেলা আনসার কমান্ড্যান্ট মোহাম্মদ সাইফুজ্জামান, জেলা পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাডভোকেট একেএম সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী, উপজেলা চেয়ারম্যান এহছানুল হায়দার চৌধুরী বাবুল (রাউজান), আব্দুল জব্বার চৌধুরী (চন্দনাইশ), নুরুল আলম (বোয়ালখালী), এস এম রাশেদুল আলম (হাটহাজারী) হোসাইন মো. আবু তৈয়ব (ফটিকছড়ি), মো. জসিম উদ্দিন (মীরসরাই), মোতাহেরুল ইসলাম চৌধুরী (পটিয়া), মো. খলিলুর রহমান (রাঙ্গুনিয়া), চৌধুরী মো. গালিব (বাঁশখালী), ফারুক আহমদ (কর্ণফুলী), বৃহত্তর চট্টগ্রাম পণ্য পরিবহন মালিক গ্রুপের সভাপতি মো. আব্দুল মান্নান, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোমেনা আক্তার (বাঁশখালী), মোহাম্মদ রুহুল আমীন (হাটহাজারী), শেখ জোবায়ের আহমদ (আনোয়ারা), মোহাম্মদ মোবারক হোসেন (সাতকানিয়া), মোহাম্মদ মাসুদুর রহমান (রাঙ্গুনিয়া), মিল্টন রায় (সীতাকুণ্ড), মো. রুহুল আমিন (মীরসরাই), মো. শামীম হোসেন (রাউজান), মো. মুশফিকুর রহমান (ফটিকছড়ি), আ.ন.ম বদরুদ্দোজা (চন্দনাইশ), তৌছিফ আহমদ (লোহাগাড়া), সৈয়দ শামসুল তাবরীজ (কর্ণফুলী), হাবিবুল হাসান (পটিয়া), একরামুল সিদ্দিক (বোয়ালখালী) প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*