প্রতি জনে ৪ থেকে ৬ লক্ষ টাকায় রেলের ৮৬৫ খালাসি নিয়োগ, কোটা অমান্য,


আমাদের ডেস্ক ::
রেলওয়ের ৮৬৫ পদের খালাসি নিয়োগে মেধাবী ও যোগ্যতাসম্পন্ন প্রার্থীদের বাদ দিয়ে অনিয়মের মাধ্যমে অযোগ্যদের ঠাঁই দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। যে কারণে বিজ্ঞপ্তি জারির দীর্ঘ ছয় বছর পর বহুল আলোচিত রেলওয়ের ৮৬৫ পদের খালাসি নিয়োগ সম্পন্ন হলেও বঞ্চিতদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। সব ধরনের কোটা অমান্য করে এ নিয়োগ দেয়া হয়েছে জানিয়ে দুদকের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন বঞ্চিত প্রার্থীরা।
এদিকে খালাসি নিয়োগ নিয়ে সমালোচনা হওয়ার শঙ্কায় গত শনিবার (১১ মে) নিয়োগের ফলাফল ঘোষণা করেই নিয়োগ কমিটির আহবায়ক ও প্রধান যান্ত্রিক প্রকৌশলী মিজানুর রহমান দেশের বাইরে চলে গেছেন। যান্ত্রিক বিভাগ সূত্রে জানা যায়, সরকারি সফরেই তিনি বিদেশ গেছেন।
বঞ্চিত দুইজন প্রার্থী অভিযোগ করেন, এ নিয়োগ বিপুল অংকের অর্থ লেনদেন হয়েছে। প্রতিজন প্রার্থীর কাছ থেকে চার থেকে ছয় লক্ষ টাকা পর্যন্ত আদায় করা হয়েছে। পুরো নিয়োগ প্রক্রিয়াটি ছিল অস্বচ্ছ। দীর্ঘদিন ধরে নিয়োগ না হওয়ায় সবাই যখন নমনীয় ঠিক সেসময়টাকেই কাজে লাগিয়েছেন নিয়োগ কমিটি। যাদের কাছ থেকে টাকা পেয়েছে তাদেরই চাকরি হয়েছে। যারা টাকা দিতে পারেন নাই তাদের নিয়োগ হয়নি। দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) তদন্ত করলেই দুর্নীতি ফুটে ওঠবে। নিয়োগ কমিটির স্বচ্ছতার অভাব ছিল প্রচুর। পূর্বাঞ্চল রেলেও এ নিয়োগ নিয়ে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যে কানাঘুষা চলছে।
রেলওয়ে সূত্র জানায়, ২০১৩ সালের ৪ জুলাই ৮৬৫ জন খালাসি নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়। এসময় নিয়োগ কমিটিতে প্রধান যান্ত্রিক প্রকৌশলী মিজানুর রহমানকে আহবায়ক ও আরটিএ’র সিনিয়র ট্রেনিং অফিসার জোবেদা আক্তারকে সদস্য সচিব করা হয়। রফিকুল ইসলাম নামে আরো একজন কমিটিতে থাকা বাকি দুইজনের মধ্যে একজন মারা গেছেন, একজন উপ-সচিব হয়ে অন্যত্র চলে গেছেন। মূলত, পূর্বাঞ্চলের জিএমের নির্দেশে কমিটির আহবায়ক ও সদস্য সচিব মিলে নিয়োগের ফলাফল চূড়ান্ত করেছেন।
রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের মহাব্যবস্থাপক (জিএম) সৈয়দ ফারুক আহমদ বলেন, ‘স্বচ্ছতার মধ্যেই এ নিয়োগ সম্পন্ন হয়েছে। সবধরনের কোটা মানা হয়েছে। অনিয়মের কোন অভিযোগ এখনো পাইনি।’
রেলওয়ে শ্রমিক লীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি হুমায়ুন কবীর বলেন, ‘খালাসি নিয়োগ আপাতত আমরা ব্ল্যাক এন্ড হোয়াইট দেখছি। তবে আমরা যেরকম প্রত্যাশা করেছিলাম এ নিয়োগ সেভাবে হয়নি। প্রত্যাশী অনুযায়ী আমাদের প্রাপ্তি নেই। পোষ্য কোটা সমস্ত রেল পরিবারের। এ কোটা কতটুকু মানা হয়েছে জানি না। এ নিয়োগের স্বচ্ছতা তদন্ত করা দরকার। আমরা খুবই মনোক্ষুন্ন। ইতিমধ্যে মন্ত্রীকে সবকিছু বলা হয়েছে। উনি এ বিষয়ে খোঁজ নিবেন বলে আশ্বস্থ করেছেন।’
রেলওয়ে সংগ্রাম পরিষদের সভাপতি মোখলেছুর রহমান বলেন, ‘খালাসি নিয়োগে শুভঙ্করের ফাঁকি আছে। আমরা পুরো নিয়োগটি ভালোভাবে দেখছি। প্রার্থী কোন কোটায় চাকরি দিয়েছে সেটা নিয়োগে উল্লেখ নাই। মহিলা, আনসার, মুক্তিযোদ্ধা, পোষ্য, প্রতিবন্ধী কোটা মানা হয়েছে কিনা তদন্ত করা উচিত। নিয়োগ কমিটিতে থাকা সিএমই সৎ থাকলেও বাকি যারা আছেন সবাই দুর্নীতিবাজ। এখনো মাত্র নিয়োগ সম্পন্ন হয়েছে। ধীরে ধীরে সব বের হবে। কার সুপারিশে কতজন চাকরি হয়েছে। কে কত টাকা লেনদেন করেছে সব বের হবে। মন্ত্রী ভালো মানুষ হওয়ার সুযোগ ভালোভাবেই কর্মকর্তারা কাজে লাগিয়েছে। আমি পুরো নিয়োগপ্রাপ্তদের তালিকা যাচাই বাছাই করছি। অস্বচ্ছতাগুলো চিহ্নিত করছি। দ্রুত একটি বিবৃতি দিব।’
রেলওয়ে শ্রমিক লীগের প্রচার সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম বলেন, ‘অনেকদিন এ নিয়োগ প্রক্রিয়া আটকে ছিল। দীর্ঘদিন পর খালাসি নিয়োগ হওয়ায় আমরা খুশি। কিছু মানুষের অন্তত চাকরি হয়েছে।’
সূত্র জানায়, রেলওয়ের ৮৬৫ পদে খালাসি নিয়োগ নিয়ে তুলকালাম নতুন নয়। এ পদের নিয়োগের বিষয়টি আদালত পর্যন্ত গড়িয়েছে। ২০১৫ সালে নিয়োগের মৌখিক পরীক্ষা সম্পন্ন হওয়ার পর নিয়োগ প্রক্রিয়া চূড়ান্ত করতে কোটি কোটি টাকার বাণিজ্যের অভিযোগ উঠে। ২০১৮ সালে এমন অভিযোগে সরকার-সমর্থিত রেলওয়ে শ্রমিক কর্মচারী সংগ্রাম পরিষদ নিয়োগের স্বচ্ছতা নিয়ে প্রশ্ন তুলে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলনও করেন। এছাড়াও খালাসি পদে মন্ত্রী-সাংসদসহ দলীয় নেতাদের সুপারিশের ভিত্তিতে লোক নিয়োগ দিতে চাপ সৃষ্টির কথা রেলওয়ের উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকে জানিয়েছিলেন বিগত পূর্বাঞ্চলের জিএম আব্দুল হাই। জিএমের এমন বক্তব্যে বাণিজ্যের সাথে যুক্ত সিন্ডিকেটটি ক্ষোভে ফেঁসে ওঠে এবং তৎকালীন জিএমকে সরিয়ে বর্তমান জিএম সৈয়দ ফারুক আহমদকে দায়িত্ব দেয়া হয়। সরকার পরিবর্তনের পর মন্ত্রী পরিবর্তন হওয়ার সুযোগটি কাজে লাগিয়ে পূর্বাঞ্চলের মহাব্যবস্থাপক সৈয়দ ফারুক আহমদ ও নিয়োগ কমিটিতে থাকা তিনজন মিলে নিজেদের মতো করে নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করেন। এরাই মূলত নতুন মন্ত্রী সবকিছু বুঝে ওঠার আগেই তড়িঘড়ি করে অনিয়মের মাধ্যমে নিয়োগ সম্পন্ন করে নিজেদের আখের গুছিয়েছেন বলে রেল অঙ্গনে গুঞ্জন চলছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*