লাইটিং কাজ শেষ হলেই চকরিয়া পৌর এলাকার চিত্র পাল্টে যাবে

এম, রিদুয়ানুল হক, চকরিয়া :: বাংলাদেশের সর্ব দক্ষিণে কক্সবাজার জেলা। এই জেলায় রয়েছে ৮টি উপজেলা, ৪টি সংসদীয় আসন ও ৪টি পৌরসভা। পৌরসভাগুলো হলো- চকরিয়া, মহেশখালী, কক্সবাজর ও টেকনাফ। মহেশখালী, কক্সবাজর ও টেকনাফ পৌরসভায় উন্নয়নের তেমন দৃশ্য দেখা না গেলেও, চকরিয়া পৌরসভার চিত্র ভিন্ন। এই পৌরসভায় উন্নয়নের পর উন্নয়ন চলমান রয়েছে। রোদ-বৃষ্টি ওপেক্ষা করে চকরিয়া পৌর মেয়র আলমগীর চৌধুরীর সার্বিক তত্ত্বাবদানে একের পর এক উন্নয়নের চিত্র জনগণকে আকৃষ্ট করছে।
বিপুল ভোটে নির্বাচিত চকরিয়া পৌর মেয়র আলমগীর চৌধুরী প্রতিমুহুর্ত জনগণের সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। বর্তমানে বর্ষার বৃষ্টিতে চকরিয়া উপজেলার বেশিরভাগ গ্রামে মারাত্মক বন্যার সৃষ্টি হলেও চকরিয়া পৌর সভার কয়েকটি নিচু এলাকা ছাড়া বেশিরভাগ এলাকায় মেয়র আলমগীর চৌধুরীর নির্দেশে দ্রুত জলাবদ্ধতা নিরসন করায় জনগণের কষ্ট বহুগুণ কমে এসেছে।
রোদে পুড়ে-বৃষ্টিতে ভিজে একজন কৃষকের মতো চকরিয়া পৌর মেয়র আলমগীর চৌধুরী দিন-রাত ২৪ ঘণ্টা মানুষের দ্বারে দ্বারে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। একটু সময় পেলেই এলাকার উন্নয়নের দাবি নিয়ে ছুটে যায় বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের দোয়ারে দোয়ারে। এই পর্যন্ত খালি হাতে ফিরেন নি তিনি। যেভাবেই হোক এলাকার জন্য তিনি নাছোঁড়বান্দা।
সম্প্রতি শুরু হয়েছে চকরিয়া পৌর এলাকার অলি-গলিতে ফুটপাত সংলগ্ন লাইটিং কাজ। ইতিমধ্যে বিভিন্ন রাস্তার পয়েন্টে লাইটিং এর জন্য বসানো হয়েছে খাম্বা। অল্প সময়ের মধ্যে চকরিয়া পৌর এলার চিত্র পাল্টে যাবে। হয়তঃ সিংগাপুর না হলেও ছোট একটি রাজধানীর রূপ নেবে এই পৌরসভা! এবিষয়ে চকরিয়া পৌরসভার মেয়র আলমগীর চৌধুরীর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন- জনগণ আমাকে ভোট দিয়েছেন এলাকার উন্নয়নের জন্য। আমি যতদিন পৌর চেয়ারে থাকবো ততদিন এলাকার উন্নয়নে কাজ করে যাবো এবং জনগণের পাশে থাকবো।
তিনি বলেন- ইতিমধ্যে পৌর এলাকার বেশিরভাগ ড্রেন ও রাস্তার কাজ সমাপ্ত হয়েছে। কিছু কিছু এলাকায় কাজ চলমান রয়েছে। শিগগিরই অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত হয়ে যাবে। তিনি আরো বলেন- এই বর্ষা মৌসমে যারা সাময়িক কষ্ট পেয়েছেন বা পাচ্ছেন তাদের জন্য আন্তরিক দুঃখ প্রকাশ করছি।
সম্প্রতি বিশ্বব্যাংক প্রতিনিধির সদস্যরা চকরিয়া পৌর মেয়রের সাথে সম্মেলন করেছেন। সম্মেলনে আলমগীর চৌধুরী পৌর উন্নয়নের জন্য ১০০ কোটি প্রস্তাব করেন। বিশ্বব্যাংক প্রতিনিধিরা ৭৫ কোটি টাকা দিবেন বলে পৌর মেয়রকে আশ্বাস দেন।
পৌর মেয়র আলমগীর চৌধুরী সকলের দোয়া ও সহযোগিতা কামনা করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*