ইমাম-পুরোহিতদের সম্মানী বাড়ানো হবে : মেয়র


স্টাফ রিপোর্টার::
ইমাম-মুয়াজ্জিন ও পুরোহিতদের দিয়ে সড়ক বাতির সুইচ পরিচালনার ফলে জনপ্রতি ২ হাজার ৫০০ টাকা হারে চসিকের ব্যয় হচ্ছে ৩৬ লাখ ৭২ হাজার টাকা। জনবল সাশ্রয় বাবদ চসিকের ১ কোটি ৩২ লাখ ৫ হাজার ৫০০ টাকা উদ্বৃত্ত থাকছে।
বুধবার (৭ আগস্ট) সকালে চসিক থিয়েটার ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে সড়ক বাতির সুইচ অন-অফ কাজে নিয়োজিত ইমাম-মুয়াজ্জিন ও পুরোহিতদের বার্ষিক সম্মানী ভাতা বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন এ তথ্য দেন।
মেয়র বলেন, নগরে ৫১ হাজার ৫৭৩টি সোডিয়াম ও এলইডি বাতি আছে। দৈনিক ভিত্তিক লোকবল দিয়ে আগে সড়ক বাতির সুইচ অন-অফ করার ব্যবস্থা চালু ছিল। একই ব্যক্তি দ্বারা ১০ থেকে ১৫টি সুইচ পরিচালনার কারণে দৈনিক ২ ঘণ্টা বিদ্যুতের অপচয় হতো। এতে ১ হাজার ৪৬৯ জনের জন্য ১ কোটি ৬৮ লাখ ৭৮ হাজার টাকা ব্যয় হওয়ার সম্ভাবনা ছিল।
বর্তমানে দৈনিক ২ ঘণ্টা করে বিদ্যুৎ সাশ্রয় বাবদ চসিকের ৯১ লাখ ৫৯ হাজার ৬৭৫ টাকা সাশ্রয় হচ্ছে। জনবল ও বিদ্যুৎ বাবদ চসিকের মোট সাশ্রয় হচ্ছে ২ কোটি ২৩ লাখ ৬৫ হাজার ১৭৫ টাকা।
মেয়র আগামী বছর থেকে ইমাম-মুয়াজ্জিন ও পুরোহিতদের সম্মানী আরও ৫শ টাকা বাড়ানোর ঘোষণা দিয়ে বলেন, এভাবে সড়ক বাতির সুইচ অন-অফ কাজ পরিচালনায় সংশ্লিষ্টরা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছেন।
চসিক প্রকৌশল বিদ্যুৎ উপ-বিভাগের আয়োজনে অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন পানি ও বিদ্যুৎ স্ট্যান্ডিং কমিটির সভাপতি গোলাম মোহাম্মদ জোবায়ের।
নির্বাহী প্রকৌশলী ঝুলন কুমার দাশের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন কাউন্সিলর হাসান মুরাদ বিপ্লব, জহিরুল আলম জসিম, মেয়রের একান্ত সচিব আবুল হাশেম প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*