সারা বছর এডিস মশার বিরুদ্ধে ‘যুদ্ধ’ চলবে


স্টাফ রিপোর্টার::
সিটি করপোরেশনের বিশেষ মশক নিধন কর্মসূচির পাশাপাশি সবাই নাগরিক দায়িত্ব পালন করলে ডেঙ্গুর বাহক এডিসমুক্ত নগর গড়ে তোলা সময়ের ব্যাপার মাত্র। সারা বছর এডিস মশার বিরুদ্ধে ‘যুদ্ধ’ চলবে।
বৃহস্পতিবার (৮ আগস্ট) সকালে অপর্ণা চরণ সিটি করপোরেশন উচ্চ বিদ্যালয়ে এডিস নির্মূলে বিশেষ ক্রাশ প্রোগ্রাম উদ্বোধনকালে মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন এসব কথা বলেন।
মেয়র বলেন, যেদিন থেকে ঢাকায় ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে তখন থেকে বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী ভারত থেকে সংগ্রহ করা ওষুধ ছিটানোর পাশাপাশি জনগণকে সচেতন করার নানা উদ্যোগ নিয়েছি। আমরা দেশে প্রথম বিনামূল্যে ডেঙ্গু পরীক্ষা চালু করেছি। আজ সরকারি, বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ও বাসাবাড়ির মালিকদের নিয়ে বিশেষ কর্মসূচি নিয়েছি। ওয়ান টাইম কাপ, প্লেট, পাত্রে পানি যেন জমতে না পারে সে ব্যাপারে সচেতন করছি।
বেলা ১১টায় স্কুল আঙিনায় মেয়র ফগার মেশিনে মশার ওষুধ ছিটিয়ে দিনব্যাপী কর্মসূচির উদ্বোধন করেন। এরপর প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী রুটিন মতো সারা বছর এডিস মশার বিরুদ্ধে অভিযান চলবে।
মেয়র বলেন, সদিচ্ছা, সৎ মানসিকতা, কর্তব্যবোধ চাই। ৪১ ওয়ার্ডের কাউন্সিলর, সংরক্ষিত ওয়ার্ড কাউন্সিলররা তদারক করবেন। সচেতনতাই আমাদের রক্ষা করবে। নিজে সচেতন হবেন, অন্যদের সচেতন করবেন। বাড়ির ফুলের টব, ফ্রিজের ট্রে, এসির পানি তিনদিন পর পর ফেলে দেবেন।


তিনি বলেন, ডেঙ্গু নিরাময়যোগ্য রোগ। আতঙ্কের কারণ নেই। জ্বর হলে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে হবে। অ্যান্টিবায়োটিকের দরকার নেই। আমরা আন্তরিকভাবে চেষ্টা করছি নগরকে নিরাপদ রাখতে।
বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক হাসান শাহরিয়ার কবীর বলেন, ডেঙ্গু একটি বাস্তবতা। শঙ্কা নয়, চাই সচেতনতা। সমস্যার মূলে আঘাত করতে হবে। আপনার টেবিলের নিচে, বাড়িতে, ছাদে ডেঙ্গুর জন্য দায়ী এডিস মশা আছে। এডিসের প্রজননস্থল নির্মূল করতে হবে। ১ হাজার মানুষের জ্বর হলে ২ জনের ডেঙ্গু হতে পারে। ভরা পেটে প্যারাসিটামল খাবেন। বেশি করে পানি, ফলের জুস খাবেন। তরল খাবার খাবেন। বিশ্রাম নেবেন। ব্যথার ওষুধ খাবেন না।
ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. মো. তৈয়ব আলী ছাত্রীদের উদ্দেশে বলেন, মশা পায়ে কামড়ায়। মোজা পরবে। বসে থাকলে পা নাড়াতে থাকবে। ইংলিশ কমোডের ঢাকনা দিয়ে, সাধারণ কমোডের ওপর কাপড় দিয়ে রাখবে। ছুটিতে গ্রামের বাড়ি যাবে। পেনিক সৃষ্টির দরকার নেই। জ্বর হলে হাসপাতালে যাওয়ার প্রয়োজন নেই।
চট্টগ্রামে ডেঙ্গুর প্রকোপ কম হওয়ার কৃতিত্ব সিটি করপোরেশনের বলে মন্তব্য করেন তিনি। চসিকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সামশুদ্দোহা বলেন, এলিট মশা হচ্ছে এডিস। তারা স্বচ্ছ পানিতে জন্মে।
এসময় উপস্থিত ছিলেন কাউন্সিলর তারেক সোলেমান সেলিম, শৈবাল দাশ সুমন, সলিমুল হক বাচ্চু, নীলু নাগ, চসিকের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. সেলিম আকতার প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*