হয়রানি মুক্ত ভূমি সেবা পাচ্ছে কর্ণফুলীবাসী : এসিল্যান্ড মারুফা বেগম নেলী


এস,এম,সালাহ্উদ্দীন ::
যেখানে ভূমি অফিস মানেই ভোগান্তি, টাকার ছড়াছড়ি। সাধারণ মানুষের হয়রানি আর অসহায়তার জায়গা। সেখানে একটি স্বচ্ছ, ঘুষবিহীন ও জবাবদিহিতামূলক সেবাকার্যক্রম পাওয়ার ব্যবস্থা করেছেন নতুন গঠিত ৪৯০তম উপজেলা কর্ণফুলীর সহকারী কমিশনার(ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মারুফা বেগম নেলী। তার নেতৃত্বে উপজেলা ভূমি অফিসের সব নৈরাজ্য দূর হয়ে সেখানে তৈরি হয়েছে আস্থার পরিবেশ। ভূমি একজন মানুষের শ্রেষ্ঠ অবলম্বন। মানুষ তার সারাজীবনের সঞ্চয় দিয়ে একখন্ড ভূমি কিনে সেই ভূমির প্রশাসনিক রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব যদি যোগ্য হাতে না পড়ে তবেই বাড়ে জনভোগান্তি। ভূমি অফিসগুলোর দীর্ঘ দিনের জীর্ণতা আর দৈন্যতাকে পিছনে ঝেড়ে ফেলে ভূমি মালিকদের মাঝে নতুন ধারণা সৃষ্টি করে দিয়েছেন এই কর্মকর্তা। যিনি নিজের ওপর অর্পিত দায়িত্ব নিষ্ঠার সঙ্গে পালন করে জনগণের আস্থা ও প্রিয় মানুষ হয়ে উঠেছেন। হয়রানি থেকে মুক্তি দেন মানুষকে। নিজের সরকারি দপ্তরকে করে তোলেছেন জনবান্ধব। বর্তমান এসিল্যান্ড যোগদানের পর থেকে তার ইতিবাচক মনোভাবের কারণে কর্ণফুলী উপজেলা ভূমি অফিসের অন্যান্য কর্মকর্তা ও কর্মচারিদের মধ্যে সেবা প্রদানের ক্ষেত্রে ইতিবাচক মনোভাব দেখা গেছে।
জানা যায়, এই এসিল্যান্ডের নেতৃত্বে উপজেলার বেদখলকৃত সরকারি জমি উদ্ধার হয়েছে। মিছমামলা (নামজারি জমাভাগ খারিজ সংক্রান্ত) মামলা শুনানির মাধ্যমে অতি তাড়াতাড়ি নিষ্পত্তি করেন। সরকারি খাস জমি রক্ষায় সবসময় তৎপর রয়েছেন। ভূমি অফিসকে দালালমুক্ত করে গতিশীল করেছেন। এছাড়া এই কর্মকর্তা জমিসংক্রান্ত সব ধরনের সেবাগ্রহীতার অধিকার নিশ্চিত করে সবার কাছে ভূমি অফিসকে সহজ, স্বচ্ছ ভাবমূর্তি ও গ্রহণযোগ্য করে গড়ে তুলেছেন। ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে অবৈধ বালু উত্তোলনসহ ভেজালবিরোধী অভিযান গতিশীল করেছেন। জনগণের সেবা প্রাপ্তির বিষয়টিকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে কাজ করেন। অফিসের নথি ব্যবস্থাপনা, প্রশাসনিক স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা বৃদ্ধিসহ জনগণের সেবা প্রাপ্তির বিষয়টিকে বেশি সমৃদ্ধ করেছেন। আগত ভূমি মালিকদের সমস্যা আন্তরিকতার সাথে শুনে তাৎক্ষনিকভাবে সমাধানের চেষ্টা করেন। পাশাপাশি সপ্তাহে একদিন আনুষ্ঠানিকভাবে ও গণশুনানী নিয়ে তাৎক্ষনিক প্রতিকারের চেষ্ঠা করেন। এমন অসংখ্য ভালো কাজ করে সাধারণ মানুষের আস্থা অর্জন করেছেন এ ভূমি কর্মকর্তা। চলতি বছরের এপ্রিল মাসে যোগদান করে কর্ণফুলীর উপজেলার এই সহকারী কমিশনার (ভূমি) এখানে সবার কাছে প্রিয় কর্মকর্তা হয়ে ওঠেছেন। ভূমি অফিসের সার্ভেয়ার মুঃ রফিকুল ইসলাম বলেন,(এসিল্যান্ড)স্যার একজন সৎ ও নিষ্ঠাবান মানুষ। আমরা ওনার আন্ডারে কাজ করতে পেরে আনন্দিত। এ উপজেলার সাধারণ মানুষের মাঝে স্মরণীয় হয়ে থাকবেন তিনি। মারুফা বেগম নেলী ৩৪ তম বিসিএস প্রশাসন ক্যাডারের একজন সদস্য। নরসিংদী জেলার রায়পূরা উপজেলা এলাকায় জন্ম এ কর্মকর্তার। এ ব্যাপারে উপজেলার পশ্চিম শাহমীরপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগী মুহাম্মদ রফিকুল ইসলাম বলেন, বর্তমান উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) কর্মকর্তার সেবা প্রদানের কার্যক্রম প্রশংসনীয়। এক সময় প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের দপ্তরে মানুষ ভয়ে যেতে চাইতো না। বিশেষ করে উপজেলার প্রশাসনিক দপ্তরগুলোতে প্রবেশ করতে সংকোচ বোধ করতো। বর্তমানে কর্ণফুলী উপজেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাধারণ মানুষের এই ধারনাটি দূর করে প্রশাসন জনগণের বন্ধু হিসেবে প্রমাণ করেছেন। তিনি উপজেলার ৫টি ইউনিয়নের সাধারণ মানুষকে নিজ উদ্যোগে সততার সহিত দ্রুত সেবা ও পরামর্শ প্রদান করে আসছেন তা প্রশংসানীয় এবং আমি ব্যক্তিগত ভাবে সাধুবাদ জানাই। এ ব্যাপারে উপজেলার বড়উঠান ইউনিয়নের প্রবাসী আব্দুর ছত্তার জানান, আমি দেশে এসে বড়উঠান মৌজা থেকে দুইগন্ডা জায়গা ক্রয় করে নামজারির জন্য আবেদন করলে সরকারি ফিঃ দিয়ে একমাসের মধ্য ই-নামজারী খতিয়ান হাতে পেয়ে আনন্দ ভোগ করছি। এতদ্রুত সৃজনশীল খতিয়ান হাতে পাবো কল্পনা করি নাই। এব্যাপারে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মারুফা বেগম নেলী বলেন, আমার অফিস হচ্ছে জনবান্ধব অফিস। সেবা গ্রহীতাদের সাথে আমি সরাসরি সাক্ষাৎ করি। আমার কার্যালয়ের দরজা সেবা গ্রহীতাদের জন্য সব সময় খোলা। আমার কার্যালয়ে কেউ আসলে সর্বপ্রথম আমি তাকে রিসিভ করি এবং তাদের অভিযোগ শুনি শেষে যদি প্রয়োজন মনে করি তখন আমি সেবা গ্রহীতাকে আমার স্টাফদের কাছে পাঠাই এবং প্রয়োজন মনে না করলে আমি সেবাগ্রহীতার সমস্যা সমাধান করি। যে কেউ চাইলে যে কোন সময় আমাকে ফোন করে যে কোন পরামর্শ ও সেবা নিতে পারে। এছাড়াও তিনি বলেন, আমার অফিসে সরকারি ফিঃ‌‌’র’ পর অতিরিক্ত কোন অর্থ নেওয়া হয় না। আমি আসার পর থেকে এপর্যন্ত কারো কাছ থেকে সরকারি ফিসয়ের অতিরিক্ত ফ্রি আমার স্টাফদেরও নিতে দেই না এবং আমার প্রত্যকটা ইউনিয়ন ভূমি অফিসে নির্দেশনা দেওয়া আছে। আমি সব সময় চেষ্টা করি আমার অফিস থেকে মানুষ যেন হাসি মুখে সেবা গ্রহন করে যায়। আমি যতদিন থাকবো আমি চেষ্টা করবো আমার এই সেবার মান ধরে রাখতে। এছাড়াও আমি আমার অফিসের সামেনে একটি অভিযোগ বক্স বসিয়েছি। ঐ বক্সে যে কেউ চাইলেই পরিচয় দিয়ে অথবা পরিচয় গোপন করে আমার কাছে অভিযোগ দিতে পারবে। এতে আমি তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহণ করবো। তা ছাড়াও মানুষ ভূমি সংক্রান্ত সহ যে কোন বিষয়ে আমার কাছে পরামর্শ চাইলে আমি পারলে নিজে সমাধান করি, আর না হয় তাকে সঠিক পরামর্শ প্রদান করি। আমি চেষ্টা করছি মানুষকে খুব সহজে এবং দ্রুত সেবা প্রদান করতে। সবশেষে তিনি, ভূমি সংক্রান্ত যে কোন বিষয়ে কর্ণফুলীবাসীকে দালাল না ধরে সরাসরি ভূমি অফিসে যোগাযোগ করার আহবান জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*