বদিউল আলমের ‘আত্মকথা’ গ্রন্থের প্রকাশনা অনুষ্ঠান

স্টাফ রিপোর্টার :: নগরের কেন্দ্রস্থলে বাণিজ্যিক পার্ক নয়, সবুজ প্রান্তর চাই। যেখানে মানুষ প্রাণভরে শ্বাস নিবে, হাঁটবে এবং মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানাবে। চট্টগ্রামের এ পুরোনো সার্কিট হাউস ও সামনের প্রান্তর মুক্তিযুদ্ধের সময়কালের অনেক নির্যাতন, জুলুমের সাক্ষী।
রোববার (১ ডিসেম্বর) চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের আব্দুল খালেক মিলনায়তনে মুক্তিযোদ্ধা বদিউল আলম রচিত ‘আত্মকথা’ গ্রন্থের প্রকাশনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এসব কথা বলেন।
তিনি বলেন, ১৯৭১ সালে আমি ও বদিউল আলম সহযোদ্ধা হিসেবে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছিলাম। চট্টগ্রামে একই সুইসাইড মিশনের লক্ষ্য নিয়ে আমরা আসকার দিঘীর পাড়ে একটি বাড়িতে ঘাঁটি করি। কিন্তু অপারেশনের পূর্বে প্রস্তুতি মিটিংয়ের সময় হঠাৎ করে পাকবাহিনী পুরো বাড়ি ঘেরাও করে ফেলে এবং গুলি ছুঁড়তে থাকে। সেখানে উপস্থিত সহযোদ্ধারা দ্রুত সরে পড়লেও আমি ও বদিউল আলম দোতলার ওই বাড়িতে আটকা পড়ে যাই।
‘আমি তাকে দ্রুত সরে যেতে বললেও সে প্রত্যাখ্যান করে বলেছিল, আপনাকে ছাড়া কোথাও যাবো না। তাৎক্ষণিক সিদ্ধান্ত নিয়ে ভেন্টিলেটরের ফাঁক দিয়ে দোতলা থেকে পার্শ্ববর্তী বড় নালায় ঝাঁপ দিই। এতে আমি পায়ে আঘাত পাই। স্থানীয় পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের সহায়তায় সেদিন আল্লাহপাক আমাদের দুজনকে নতুন জীবন দান করেন’।
অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তা ছিলেন একুশে পদকপ্রাপ্ত জাতীয় অধ্যাপক ড. মাহবুবুল হক। তিনি বলেন, বদিউল আলম রচিত এ বই আমি পড়েছি। তিনি খুবই সাবলীলভাবে মুক্তিযুদ্ধের কথা বলেছেন। কিন্তু একটি বিষয় আমাকে আন্দোলিত করেছে। তা হলো- মহান মুক্তিযুদ্ধে মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বতোভাবে সাহায্যকারী সাত কোটি মুক্তিপাগল গণমানুষের সর্বোচ্চ সহায়তার কথা তিনি গভীর শ্রদ্ধায় স্মরণ করেছেন। নিজ গৌরবগাঁথা বর্ণনা না করে মুক্তিযুদ্ধকালে কোনও এক প্রৌঢ় পিতার সর্বোচ্চ ঝুঁকি নেওয়ার কথা বলেছেন।
মুক্তিযোদ্ধা রেজাউল করিম বলেন, চট্টল বীর মহিউদ্দিন চৌধুরীর একনিষ্ঠ সহকর্মী এই মুক্তিযোদ্ধা যেভাবে রাজনৈতিক কর্মী হিসেবে কাজ করেছেন এবং জনপ্রতিনিধি হিসেবে দায়িত্ব পালনকালে নিজ এলাকায় স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসাসহ বিভিন্ন সেবামূলক কাজ করেছেন, তা প্রশংসার দাবি রাখে।
নগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা মাহতাব উদ্দিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে প্রকাশনা অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন মুক্তিযোদ্ধা নঈম উদ্দিন চৌধুরী, অ্যাডভোকেট ইব্রাহিম হোসেন বাবুল, আবুল মনসুর, সিএনসি জাহাঙ্গীর, নেভাল কমান্ডো আজিজুল আলম, মুহাম্মদ ইউনুস, নগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আলতাফ হোসেন বাচ্চু, চসিক প্যানেল মেয়র চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনী প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*