লোহাগাড়ার চরম্বায় ৪বাড়িতে বন্যহাতির তাণ্ডব


রায়হান সিকদার,লোহাগাড়া::
লোহাগাড়ায় ৪টি ঘরে তাণ্ডব চালিয়েছে বন্য হাতি। গতকাল শনিবার রাত সাড়ে ১১টা উপজেলার চরম্বা ইউনিয়নের পুর্ব মাইজবিলা মরিচ্চ্যা ঘোনায় এ ঘটনা ঘটে।
স্থানীয় সূত্র জানায়, ৮ ডিসেম্বর রাত সাড়ে ৮টার দিকে পুর্ব মাইজবিলা কবরস্থান মুড়া এলাকায় বন্যহাতির দল কৃষক নুরুল আলমের ধানক্ষেত নষ্ট করছিল। খবর পেয়ে তিনি সিএনজি নিয়ে সেখানে পৌঁছলে বন্যহাতির আক্রমণে কৃষক নুরুল আলম প্রাণ হারায়। একইদিন রাত সাড়ে ১১টার দিকে পুর্ব মাইজবিলা মরিচ্চ্যা পাড়ার আব্দু শুক্কুরের বাড়ি,আবদুর রহিমের বাড়ি, সাদ্দামের বাড়ি ও মরিয়মের বসতঘরসহ মোট ৩বসতবাড়ী লন্ডভন্ড করে দেয় বন্যহাতির দল।
বন্যহাতির দল বাড়িগুলোর গাছ, দরজা, দেয়াল, রান্নাঘর ভাঙে,একটি নলকুপ এবং তাদের বাড়ীতে থাকা প্রয়োজনীয় আসবাবপত্র তছনছ করে। পাশাপাশি আবদুস শুক্কুরের ঘরের ২শ আড়ি ধান ছিটিয়ে দেয় এবং বাড়ীতে থাকা ধান আহরণ করে। ওই সময় হাতির ভয়ে আতঙ্কিত লোকজন সেখান থেকে দ্রুত অন্যত্র চলে যায়। হাতিটি গভীর রাতে পাহাড়ে উঠে গেলে লোকজন ঘরে ফিরে আসলেও তাদের বসতঘরে থাকার ঠাঁই মিলছে না।
চরম্বা ইউপি সদস্য মুহাম্মদ জয়নাল আবেদীন জানান,বন্যহাতির দল কৃষক নুরুল আলমকে গতকাল রাতে হামলা করার পর পুর্ব মাইজবিলা মরিচ্চ্যা ঘোনা এলাকায় ৪পরিবারের বসতঘর হাতির তান্ডবে লন্ডভন্ড হয়ে গেছে। হাতির তান্ডবে ১০লক্ষাধিক টাকা ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্তরা এখন খোলা আকাশের নিচে বসবাস করছে বলেও তিনি জানান। চরম্বা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাস্টার মুহাম্মদ শফিকুর রহমান জানান, গতকাল রাত্রে পুর্ব মাইজবিলা এলাকায় বন্যহাতির আক্রমণে কৃষক নুরুল আলম নিহত হন। পরবর্তীতে ওই এলাকায় বন্যহাতির তান্ডবে ৪পরিবারের বসতঘর লন্ডভন্ড করে ব্যাপকভাবে ক্ষতিসাধন করেছেন। ক্ষতিগ্রস্তরা খুবই অসহায়।
এলাকার সাধারণ লোকজন বন্যহাতির আতংকে রয়েছে। তিনি সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের সহযোগীতা কামনা করেছেন। পদুয়া বনরেঞ্জ কর্মকর্তা মুহাম্মদ সরওয়ার জাহান জানান, পুর্ব মাইজবিলা কবরস্থান মুড়া ও মরিচ্চ্যা ঘোনা এলাকাটি দুর্গম পাহাড়ি এলাকা হিসেবে পরিচিত। সেখানে বন্যহাতিরা অবস্থান করে থাকে। কিন্তু এ এলাকায় লোকজনের বসতঘর নির্মাণ করার কারণে সঠিকভাবে বন্যহাতিরা খাদ্য আহরণ করতে পারেনা। বন্য হাতির খাদ্যের সংকটের কারনে লোকালয়ে খাদ্যের খোঁজে হানা দিচ্ছে।
লোহাগাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) তৌছিফ আহমেদ বলেন, বন্য হাতির আক্রমণে ১কৃষক নিহত এবং তান্ডবে ৪বসতবাড়ি ক্ষতি হওয়ার খবর শুনেছি।
ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারদের মাঝে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে আর্থিকভাবে সহযোগীতা প্রদান করা হবে বলেও তিনি জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*