আনোয়ারা ফুটপাতে দোকান, সড়কে গাড়ি,ভোগান্তির মোড় চাতরী চৌমুহনী


এস,এম,সালাহ্উদ্দীন ::
ফুটপাত দখল করে বসেছে হকার সেখানে চলছে জমজমাট কেনাবেচা । সড়কে যানবাহন নিয়ন্ত্রনে নেই পরিকল্পিত কোন উদ্যোগ। যেমন খুশি তেমনভাবে চলছে গাড়ি। প্রতিদিন বিকালবেলা ভয়াবহ যানজটে হাঁসফাঁস যাত্রীদের প্রাণ। সড়কের একাংশ জুড়ে সিএনজি ও ব্যাটারি চালিত রিকশার দীর্ঘ সারি। দেখে বুঝার অবস্থা নেই এটি সড়কের অংশ না গাড়ির স্ট্যান্ড। এচিত্র আনোয়ারার প্রাণকেন্দ্র অন্যতম ব্যস্ততম এলাকা চাতরী চৌমুহুনী মোড়ের। এই মোড় দিয়ে কেইপিজেটে ৩০হাজার শ্রমিকসহ বাঁশখালী, চন্দনাইশ,স্কুল,কলেজের সহ কয়েক লাক মানুষ দৈনিক যাতায়াত করেন।একটি মাত্র মোড় দিয়ে এতো বিপুল সংখ্যক মানুষ যাতায়াতের কারনে স্বাভাবিকভাবেই এ মোড়ে যানবাহনের চাপ থাকে বেশি। সেইজন্য মোড়টাকে যানজট মুক্ত করতে এলাকার সংসদ সদস্য গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের ভূমিমন্ত্রী আলহাজ্ব সাইফুজ্জামান চৌধূরী জাবেদ এর নির্দেশনায় কয়েক কোটি টাকা খরচ করে রাস্তা প্রসস্থ করেন। এবং পথচারী ও জনগণের হাটার জন্য আলাদা আয়ল্যান্ড তৈরী করা সহ রাস্তার মোড়ে গোলচত্বর তৈরী করে দিয়েছিলেন। এবং ফুটপাতে যাতে রাস্তায় বসতে না পারে সেজন্য বাজারে রাস্তার পাশে লোহার গ্রীল দিয়ে সীমানা ঠিক করে দিয়েছিলেন। সিএনজি কোন জায়গায় রাখা হবে উপজেলা প্রশাসন সাইনবোর্ড দেওয়ার পরেও সবকিছুকে উপেক্ষা করে যেমন খুশি তেমনভাবে চলছে গাড়ি ও যেখানে সেখানে বসছে ভাসমান টং দোকান। দু-এক বছর আগে আনোয়ারা উপজেলা প্রশাসন ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করে সিইউএফএল সড়কে পাঁচসিকদার পুল থেকে পিএবি সড়কের উত্তর পার্শ্বে ইসমাইল চৌধূরী জামে মসজিদ ও দক্ষিণ পার্শ্বে মোহাম্মদীয়া বাড়ীর জামে মসজিদের গেইট পর্যন্ত দখল মুক্ত করার পর সুফল পেয়ে ছিল জনগন কিন্তুু উচ্ছেদ অভিযানের কয়েক দিন যেতে না যেতে আবারো বসতে থাকে ভাসমান দোকান ও মূল দোকানের বাহিরে জিনিস রেখে ফুটপাত দখলে নেয়। এতে করে পথচারীকে বাধ্য হয়ে জীবন হাতে নিয়ে হাঁটতে হয় রাস্তার উপর। চাতরী চৌমুহুনী এলাকার ব্যবসায়ী মুহাম্মদ সাদ্দাম হোসেন বলেন, ট্রাফিক ব্যবস্থাপনায় হ-য-ব-র-ল অবস্থার কারণে পুরো এলাকা জুড়ে সৃষ্টি হয় তীব্র যানজটের। চাতরী চৌমুহুনী ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির সভাপতি জাগির আহমেদ বলেন, প্রশাসন ফুটপাত উচ্ছেদ করে যওয়ার পর পর তারা আবারো বসে যাই।তাদের কারণে প্রকৃত ব্যবসায়ীদের ও ক্ষতি হচ্ছে। মার্কেটের দোকানগুলোর সামনে ফুটপাত বসায় দোকানগুলোর বিক্রয় হয় কম। হকারদের ফুটপাত দখলের নেপথ্য যারা রয়েছেন তাদের তালিকা তৈরী করে প্রশাসন ব্যবস্থা নিলে ফুটপাত দখল মুক্ত করা সহজ হবে। এব্যপারে ট্রাফিক পুলিশের ইনচার্জ সামিউর বলেন,ট্রাফিক সদস্যরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করে যানজট মুক্ত করার জন্য। গার্মেন্টস ছুটি হলে একসাথে গাড়িগুলো আসার কারণে সন্ধ্যা বেলা একটু যানজট হয়। ফুটপাত উচ্ছেদ হলে যানজট থাকবে না বলে জানান তিনি। এব্যপারে আনোয়ারা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট (ভূমি) মুহাম্মদ সাইদুজ্জামান বলেন, আমরা চাতরী চৌমুহুনীতে ফুটপাত উচ্ছেদ করার পর পরবর্তীতে আবারো বসে যাই। তাদের বিরুদ্ধে দ্রুত সময়ে অভিযান চালানো হবে। আনোয়ারা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) দুলাল মাহমুদ বলেন, চাতরী চৌমুহুনী মোড়ে যানজট মুক্ত করার জন্য অনেকবার ফুটপাত দখলকারীদেরকে উচ্ছেদ ও গ্রেফতার করা হয়েছে। পরবর্তীতে তারা আবারো ফুটপাতে বসে যাই তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এব্যপারে আনোয়ারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ জুবায়ের আহমেদ বলেন, চাতরী চৌমুহুনী মোড়ে সড়কের উত্তর, দক্ষিণ, এবং পশ্চিমে কোন জায়গায় সিএনজি রাখবে সেখানে সাইনবোর্ড দিয়ে মার্ক করে দিয়েছি। এসব নিয়ম যারা অমান্য করে মূল সড়কের উভয় পাশে বা যত্রতত্র গাড়ি রেখে রাস্থায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করছে। তাদের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*