স্মার্ট ফোন নয় সন্তানকে স্মার্ট করবে একটি ভাল বই- তথ্য মন্ত্রী

এইচ এম ওসমান সরওয়ার :: চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন আয়োজিত মুজিব বর্ষে বঙ্গবন্ধুকে নিবেদিত ২০দিন ব্যাপী অমর একুশে বইমেলা-২০২০ আজ সোমবার (১০ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় চট্টগ্রাম নগরীর এমএ আজিজ স্টেডিয়ামের জিমনেশিয়াম মাঠে শুভ উদ্বোধন করেন তথ্যমন্ত্রী ড.হাছান মাহমুদ।অনুষ্ঠানে তিনি বলেন ‘তথ্য প্রযুক্তির এই যুগে একটি বিষয় পরিবার,সমাজ এমনকি রাষ্ট্রের জন্য ক্ষতিকর হয়ে উঠছে। আজকাল অনেক অভিবাবকদের দেখা যায় সন্তানের বয়স ১০/১২ না পেরুতেই তার হাতে স্মার্ট ফোন তুলে দেন। কিন্তু অভিভাবকরা বুঝেন না যে, একটি স্মার্ট ফোন দিয়ে অনেক অপশনে কাজ করা যায়,যা আপনার সন্তান ব্যবহার করে নানামুখী অনৈতিক,অসামাজিক কর্মকাণ্ড করতে পারে। আমাদের অভিভাবকদেরকে স্মার্ট ফোনের ইতিবাচক দিকের পাশাপাশি নেতিবাচক দিকগুলোর কথা মাথায় রাখতে হবে। মনে রাখতে হবে স্মার্ট ফোন নয়, সন্তানকে স্মার্ট করতে পারে একটি ভাল বই। বিল গেটস মত মানুষ তার সন্তানকে ১৬ বছর বয়স পেরুনোর পর হাতে ফোন দিয়েছিলেন। আমাদের অভিবাবকদেরকে বিল গেটসের গল্প থেকে এই শিক্ষা নিতে হবে। বিএনপি কথায় কথায় বিদেশি কূটনীতিকদের কাছে নালিশ দেয়া দেশের জনগণের জন্য অপমানজনক, নেতিবাচক রাজনীতি না করলে ১১ বছরে বাংলাদেশ বহুদুর এগিয়ে যেতে পারতো বলেও জানান তিনি। সে সময় তিনি আরও বলেন, বিএনপি বিদেশিদের কাছে নালিশ দিয়ে দেশ ও জাতিকে ছোট করেছে। বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে বিদেশি রাষ্ট্রগুলো যাতে হস্তক্ষেপ করতে পারে সে পথ তৈরি করে দিয়েছে তারা। দলটির পক্ষ থেকে বেশ কয়েকটি বিদেশি রাষ্ট্রদূত-কূটনীতিকদের সঙ্গে বসে ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচন নিয়ে তাদের কাছে নালিশ উপস্থাপন করেছে। ভোট দিল বাংলাদেশের মানুষ ভোট হল ঢাকা শহরে,যদি কোনো নালিশ থাকে তাহলে ঢাকা শহরের ভোটারদের কাছে, বাংলাদেশের মানুষকে নালিশ দিতে হবে, বিদেশিদের কাছে নয়। তারা ক্রমাগতভাবে যেকোনো বিষয়ে বিদেশিদের কাছে ছুটে যায়, এটি দেশ, জাতি এবং ঢাকা শহরের ভোটারদের অপমান করার শামিল, যে কাজটি ক্রমাগতভাবে করে যাচ্ছে বিএনপি। কোন নালিশ থাকলে সেটি দেশের মানুষের কাছে উপস্থাপন করতে বিএনপি নেতাদের অনুরোধ জানান তথ্যমন্ত্রী। হাছান মাহমুদ বলেন,বাণিজ্যিক রাজধানী চট্টগ্রামে ৭০ লাখের বেশি মানুষ বসবাস করেন। বইমেলার অভাব ছিলো। বিক্ষিপ্ত বইমেলা হতো। চসিক সম্মিলিত বইমেলা আয়োজন করেছে। প্রযুক্তির উৎকর্ষের পাশাপাশি যন্ত্রে রূপান্তরিত হচ্ছে মানুষ। আজকের পৃথিবীর বাস্তবতায় মানুষের মানবিক গুণাবলি অক্ষুণ্ন রাখতে ও মানসিক সুস্থতার জন্য বই পড়ার বিকল্প নেই। এছাড়া, স্কুলশিক্ষার্থীদের বইমেলায় নিয়ে আসার ও পুরস্কৃত করার আহ্বান জানান তথ্যমন্ত্রী। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন।অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন চসিক প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো সামসুদ্দোহা, শিক্ষা স্বাস্থ্য স্ট্যান্ডিং কমিটির সভাপতি নাজমুল হক ডিউক, চসিক প্রধান শিক্ষা কর্মকর্তা সুমন বড়ুয়া, সৃজনশীল প্রকাশক পরিষদ সভাপতি শাহ আলম নিপু প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। মেলায় স্টল বরাদ্দ দেয়া হয়েছে ২০৫টি, ঢাকার ১১৮টি এবং চট্টগ্রামের ৪০টি স্টল থাকবে বলে জানা যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*